• শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০২:৩৫ অপরাহ্ন
  • English Version

ফ্যাশনে দেশিয় মোটিফ নিয়ে কিউরিয়াসে প্রদর্শনী

লাইফস্টাইল ডেস্ক / ৫৪ ফেসবুক শেয়ার
আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২১
bd lifestyle news,

কাঁথা ফোঁড়ের ঐকতান আর উপকরণের অলঙ্কৃত সুরিয়েরিজম নিয়ে কিউরিয়াসে শুরু হয়েছে ‘উইন্টার এক্সিভিশন’। ৩০ নভেম্বর মঙ্গলবার রাজধানীর বনানীতে তাদের ফ্যাগশিপ আউটলেটে শুরু হয় এই প্রদর্শনী। কিউ গ্যালারিতে ঢুকলেই চোখে পড়বে নজরকাড়া আয়োজন। এক পাশে পোশাক আর অন্য পাশে নারীদের প্রিয় গহনা। তবে সবার আগে চোখ আটকে যাবে ঝকঝকে টায়েলসে পড়ে থাকা শুকনো পাতার দিকে। আমিও তার ব্যতিক্রম ছিলাম না। বিষয়গুলো বুঝে ওঠার আগেই পাশ থেকে ডিজাইনার চন্দ্র শেখর সাহা বলেন, পোশাকগুলোর উপস্থাপনায় ঝরা পাতা কেন? উত্তর দেওয়ার আগেই মুখ থেকে কথা কেড়ে নিয়ে নিজেই বলে দিলেন এখন শীতকাল। আমরা তাই সব আয়োজনের ভেতর শীতের আমেজটা ধরে রাখতে চেয়েছি। শহুরে জীবনে এমনটা ধরা না দিলেও গ্রামীণ জীবনে প্রকৃতিই সব জানান দেয়। ফ্যাশন নিয়ে কাজ করার সুবাদে দাদার সঙ্গে পরিচয়টা অনেক আগেই। তিনি কিউরিয়াসের ডিজাইনার কনসালট্যান্ট। এবারের কালেকশনগুলো তারই চিšøার ফসল। সংবাদ সম্মেলন শুরু হওয়ার আগেই আমাদের পুরো আয়োজনটি ঘুরে দেখালেন আর বর্ণনা করলেন। প্রথমেই শীত পোশাকের আয়োজন। দেশীয় ধাঁচে তৈরি হয়েছে প্রতিটি পোশাক। এরপরেই একটি কর্নারে রাখা হয়েছে তুলা, লেপ ও ধুনকো।  এটি দেখাতে গিয়েই চন্দ্র শেখর সাহা বলেন, ‘আমরা এখন কোরিয়ান কম্বল গায়ে জড়িয়ে আরামে একটা ঘুম দিই। এটা সময়ের চাহিদা। লেপের জায়গা বদলে নিয়েছে কম্বল। এমন ছোটখাটো অনেক বিষয় উপস্থাপন হয়েছে প্রদর্শনীতে। ভিন্ন ধরনের এই প্রদর্শনীর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক লুভা নাহিদ চৌধুরী, একশনএইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবির, ডেকো লিজেন্সি (লিগ্যাসি হবে) গ্রুপের চেয়ারম্যান এম সাহাদাত হোসেন কিরণ, কিউরিয়াসের (এখানে কিউরিয়াস হবে না শুধু পরিচালক থাকবে) পরিচালক মৌ হোসেন ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মিনহাজ হোসেন।

ঋতুবৈচিত্র্যে বাংলাদেশ নিজস্বতায় আজও অন্যতম। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতোই বাংলাদেশের শীতের আবহাওয়া, ঐতিহ্যগতভাবে চাঁপাইনবাবগঞ্জের লহরী কাঁথা, কুমিল­ার খদ্দর শাল, পার্বত্য চট্টগ্রামের খাদি সুতার বুরগী, সিলেটের খেশ এবং রাজশাহীর ভেড়ার পশমের কম্বল আজ ইতিহাস। এরই ধারাবাহিকাতায় শীত প্রদর্শনীতে ২০২১-এর আয়োজনটি উপস্থাপিত হয়েছে সময়োপযোগী করে। যার মধ্যে আছে কাঁথা ফোঁড়ের ঐকতান, নীলাভ ছন্দ, নান্দনিক জটিলতা ও আলোছায়া-জাদুমায়া শিরোনামে সংযোজিত হয়েছে গহনার প্রচলিত ও অপ্রচলিত উপকরণের সমন্বয়ের রূপবৈচিত্র্য।

এখানে গুরুত্ব পেয়েছে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি, জয়বায়ু পরিবর্তন আর এই পরিপ্রেেিত পোশাক শিল্প আর ফ্যাশন দুনিয়ার দায়িত্বশীলতা। যে হারে বৈশ্বিক তাপমাত্রা বাড়ছে, এভাবে চলতে থাকলে ৫০ বছর পর শীতকাল বলে আর কিছু থাকবে কিনা, তা নিয়েও আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়। চন্দ্র শেখর সাহা বলেন, যে দাদিকে গিু দেখেনি, কিন্তু তার বোনা সোয়েটার শরীরে চাপিয়ে বড় হয়েছে। এই যে একজন আরেক মানুষের স্নেহের স্পর্শ গায়ে জড়িয়ে চলেছে, পোশাকের আজকের কালেকশন সেটিকে উদযাপন করার প্রয়াস মাত্র। আর যেগুলোকে আপনারা গহনাহৃপে দেখছেন, এর উপকরণগুলোকে আমরা বীজ, মেটাল, কাপড়, কাঠহৃপে পরে থাকতে দেখি। কিন্তু কখনও সেগুলোকে গহনা হিসেবে কল্পনা করি না। আমাদের এই গহনার কালেকশন তাই অলক্ষে পড়ে থাকা টুকরো বাতাবাস্তবতা আর স্বপ্নের সম্মিলন। পুরো প্রদর্শনীকে ভাগ করা হয়েছে দু’ভাবে। এক, কাঁথা ফোঁড়ের ঐকতান এবং অন্যটি উপকরণের অলঙ্কৃত সুরিয়েলিজম।

সময়ের অতীত থেকে গৌরবময় সৃজন ঐতিহ্য, আমাদের শিল্প-সংস্কৃতি ও জীবনধারাকে সব সময়ই সমৃদ্ধ করে এসেছে। নকশিকাঁথা বাঙালির মমতা জড়ানো কারুশৈলীর চিরন্তন অনুভব। ‘কিউরিয়াস’ এবারের আয়োজনের প্রেরণায় ছিল নকশিকাঁথা ফোঁড়ের বর্ণিল সারফেস; সহযোগী হিসেবে সংযুক্ত হয়েছে বাটনস্টিচের সুরেলা বর্ডার। লাইনিংয়ের প্রিন্ট ডিজাইনে শিল্পীর নিপুণ ড্রইংয়ের স্বপ্ন তৈরি করেছে প্রকৃতির ছায়াময় বাগান। এবারে শীতের পোশাকে স্টাইলের মাধ্যমে আরও সংযোজিত হয়েছে সময়ের আধুনিক মাত্রা। আয়োজনটি প্রদর্শনীর মাধ্যমে পৃষ্ঠপোষকদের সঙ্গে পরিচিত হবে নান্দনিক ভঙ্গিতে। প্রাকৃতিকভাবে নির্ধারিত হয়েছে দীর্ঘ সময়ে পরিক্রমায় পোশাকের সুবিশাল বৈচিত্র্য। কিউরিয়াস শীতের আবহাওয়ায় দৃষ্টিনন্দন ব্যক্তিত্বের বিষয়টিতে উপলব্ধি করে, তার যৌক্তিকতায় পুরুষ ও মহিলাদের দুটি আলাদা কালেকশনও উপস্থাপিত করেছে। প্যাটার্নের ছন্দ ও কাঁথা ফোঁড়ের প্রয়োগে ব্যতিক্রমী সৌন্দর্যের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে শীত ফ্যাশনের বর্ণিল রংমালা।

উপকরণের অলঙ্কৃত সুরিয়েলিজম

অলঙ্কার শিল্পের উদ্ভব হয়েছে ৫ হাজার বছরের অতীত সময় থেকে। হারিয়ে যাওয়া সবগুলো সভ্যতাতেই তার উদাহরণের নিদর্শন পৃথিবীর বিভিন্ন জাদুঘরে সংরতি রয়েছে। কিউরিয়াস তার গুণগ্রাহী পৃষ্ঠপোষকদের জন্য গহনার নতুন ভাবনা রচনা করেছে, যেখানে উপস্থাপিত হয়েছে ঐতিহ্য ও আধুনিকতার সম্পর্কিত সময় ও ভাবনার বৈচিত্র্য অভিনবত্ব। আমাদের দৈনন্দিন জীবনের চলমানতায় প্রয়োজন ও স্বপ্নবিলাসের এক দ্বৈত সংগীত সবসময়েই অনুরচিত হয়ে চলেছে। কিউরিয়াসের ডিজাইন স্টুডিও অভিজ্ঞতা, নান্দনিকতা ও সৃজনশীলতার অনুভব থেকে প্রদর্শনীর গহনার ভাবহৃপ সৃজনে প্রয়াসী হয়েছে। প্রদর্শনী চলবে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত।


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর